টেকনোলজি

কম্পিউটারের ডেস্কটপে যা যা থাকে

কম্পিউটার ওপেন করার পর যে স্ক্রিণটি দেখতে পাওয়া যায় সেটাই হলো ডেক্সটপ। কম্পিউটারের সব কাজ ডেক্সটপ স্ক্রিণ থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। ডেক্সটপ স্কিণে বিভিন্ন ধরনের আইকোন (ছোট ছবি), ফাইল, ফোল্ডার, ইত্যাদি বিন্যস্ত ভাবে রাখতে পারি । এই আইকোন গুলো হলো This PC/My computer, Recycle Bin, Browser, Network, sound, clock এবং Apps ইত্যাদি এক একটি আইকোন। এছাড়া থাকে কার্সার, টাস্কবার,স্টার্ট বাটন বা উইন্ডোজ লোগো বাটন। নিম্নে ডেক্সটপ স্কিণ সম্পর্কে বর্ননা দেয়া হলো ।


This PC/My computer

ডেক্সটপের একেবারে উপরে বামদিকে (My computer ) থাকে । এটিতে একটি কম্পিউটারের আইকোন দেওয়া থাকে । এখান থেকে আমরা কম্পিউটারের বিভিন্ন অংশে প্রবেশ করতে পারি । বর্তমানে এই আইকোনের নিচে (This PC) লেখা থাকে । তবে আপনি যে কোন সময় এ আইকোনের নাম পরিবর্তন করা যায়। । ডাবল ক্লিক করার মাধ্যমে এটি ওপেন করা যায় এবং কম্পিউটারের ভিতরের বিভিন্ন ফাইল ও ফোল্ডার দেখা যায় ।

ডেক্সটপ স্কিণে বিভিন্ন ধরনের ফাইল, ফোল্ডার ও অ্যাপিলকেশনের আইকোন ইত্যাদি রাখা যায়। আমরা প্রয়োজনের সুবিধার্তে নির্দিষ্টভাবে কোন ফাইলের শর্টকাটও ডেস্কটপে রাখতে পারি। এর ফলে কোন ড্রাইভে না গিয়েই ডেস্কটপে রাখা শর্টকাট থেকে আমরা উক্ত ফাইলে প্রবেশ করতে পারি ।

ডেস্কটপে যে ধরনের ফাইল, ফোল্ডার, অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে তা আমরা খুব সহজে ড্রাগ করে অন্য স্থানে রাখতে পারি । প্রয়োজন মতো সবকিছু সাজিয়ে রাখা যায় । সাধারণত আমরা ডেস্কটপে বিভিন্ন ধরনের ফাইল, ফোল্ডার, অ্যাপ্লিকেশন রাখা সঠিক হবে না । কখোনা কম্পিউটার ক্রাস করলে বা উইন্ডোজ নষ্ট হয়ে গেলে ডেস্কটপে রাখা সমস্ত কিছু ডিলেট হয়ে যায় এবং এগুলোকে পুনরায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয় না । তাই কাজের ফাইল ডেক্সটপে রাখা নিরাপদ নয়। ফাইগুলো বিভিন্ন ড্রাইভের ভিতরে রাখা উচিত। তবে প্রয়োজনে ব্যবহরূত ফাইলর শর্টকাট করে রাখতে পারি ।

রিসাইকেল বিন

ভুল করে কোনও ফাইল মুছে ফেললে বা ডিলিট করে দেয়া হলে ফাইলগুলো একটি ফোল্ডারে জমা হয়। অর্থাৎ কোনও ফাইলকে মুছে ফেলার জন্য কম্পিউটারকে নির্দেশ দিলে ফাইলটি চলে যায় রিসাইকেল বিন নামক একটি স্থানে। তবে, কোনও মুছে ফেলা ফাইল পুনরুদ্ধারের ব্যবস্থা আছে।


টাস্কবার

স্ক্রিনের একেবারে নিচে আংশে লম্বালম্বি প্রদর্শিত বারটিকে টাস্কবার বলে। টাস্কবারের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি যে, বর্তমানে কোন ধরনের অ্যাপ্লিকেশন চালু অবস্থায় আছে। টাস্কবারের সব ডানে সময়,তারিখ প্রদর্শিত হয়। টাস্কবারে উইন্ডোজ আইকোন (স্টার্ট বাটন বা উইন্ডোজ লোগো বাটন) থাকে যার দ্বারা কম্পিউটারে কতোগুলো অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল রয়েছে সেগুলো দেখতে পাওয়া যায় । তাছাড়া টাস্কবারে বিভিন্ন এপ্লিকেশন ব্যবহারের জন্য সাজিয়ে রাখতে পারি।

কার্সার

মাউসের সাহায্যে ক্লিক করে কমান্ড/ইনপুট দেয়া হয়। এই কার্সার কাজের উপর ভিত্তি করে চেহারা পরিবর্তন হতে থাকে, কখনও তীর চিহ্ন কখনও ভার্টিকেল রেখার মতো।

স্ক্রীনের কোন স্থানে মাউস পয়েন্টার স্থাপন করে মাউসের বোতামে চাপ দেওয়াকে ক্লিক করা বলে। একবার মাউস বোতাম চাঁপাকে বলে ক্লিক। তেমনি দুবার মাউসের বোতাম চাঁপাকে বলে ডাবল ক্লিক। মাউস দ্বারা কোন ফাইল বা প্রোগ্রাম ওপেন করতে হলে ওই ফাইল বা প্রোগ্রামের উপর কার্সার নিয়ে ডাবল ক্লিক করতে হয়।

সূত্র : ইন্টারনেট ও নিউজ মিডিয়া।


আরও পড়ুন:

হার্ডওয়্যার পরিচর্যা

কম্পিউটার হার্ডওয়্যার পরিচর্যা

কম্পিউটারের যত্ন

কম্পিউটারের যত্ন করবেন কীভাবে

মাউস পয়েন্টার

বহুরূপী মাউস পয়েন্টার

Share on Social Media