গল্পবিনোদন

শিয়ালের চালাকি

[ দ্বিতীয় গল্প – লেজ কাটা শিয়াল]

এক শিয়ালের খুব ক্ষুধা পেল। অনেক খুঁজে কোথায়ও খাবার পেল না। অবশেষে খাবারের জন্য জঙ্গলে বেরিয়ে পড়ল। অনেক দূর যাওয়ার পর হঠাৎ একটা মরা হাতি দেখতে পেল।

সে এক দৌড়ে গেল মরা হাতির কাছে। মরা হাতির গায়ে কামড়াতে চেষ্টা করল। কিন্তু হাতির চামড়া ছিল খুব শক্ত। তাই হাতির মাংস খেতে পারল না। অনেকক্ষণ চেষ্টা করে ক্লান্ত হয়ে মরা হাতির পাশেই বসে পড়ল। হঠাৎ সে  সিংহের ডাক শুনতে পেল। দেখল একটা সিংহ তার দিকে আসছে। তখন সে বিনয়ের সাথে সিংহকে বলল, ‘আসুন, মহারাজ আসুন। আমি আপনার জন্য হাতি শিকার করে অপেক্ষা করছি। আসুন আহার করুন।’ সিংহ হুংকার দিয়ে উঠল। সে বলল, ‘আমি অন্যর শিকার করা খাবার খাই না। এই বলে সিংহ সেখান থেকে চলে গেল।

আরও পড়ুন: অলস শিয়ালের কান্ড


কিছুক্ষণ পরই এক চিতা সেখানে এসে হাজির।শিয়াল বলল, ‘এসো ভাই এসো! একটু হাতির মাংস খাও । এটা সিংহ শিকার করে রেখে গেছে। আমাকে পাহাড়ায় রেখে গেছে।’ চিতা বলল, ‘বাপরে বাপ্। সিংহের শিকার আমি খাব?’

শিয়াল বলল, ‘তুমি একদম চিন্তা করো না। সিংহ আসতেই আমি তোমাকে জানিয়ে দেব। তখন তুমি পালিয়ে যেয়ো।’ চিতা ভাবল, এটা একটা সুযোগ। সে খাওয়া শুরু করল। চিতার ধারালো দাঁত দিয়ে খুব সহজেই  হাতির চামরা কেটে মাংস বের করে ফেলল।শিয়াল ততক্ষণ চুপ করে দেখছিল। যেই চিতা হাতির মাংস বের করল, অমনি শিয়াল চেঁচিয়ে উঠল, ‘সাবধান চিতা ভাই! এখনই পালাও। সিংহরাজ এসে গেছেন।’

সিংহের কথা শুনে চিতা সেখান থেকে দ্রুত পালিয়ে গেল। শিয়াল এবার মহা খুশি হলো। হাতির মাংস পেট পুড়ে খেল।

আরও একটি গল্প

লেজ কাটা শিয়াল

অনেক আগে বনে শেয়াল থাকত। সে শিকারের সন্ধানে এদিক-ওদিক ঘুরে বেড়াচ্ছিল যে হঠাৎ সে একটি আওয়াজ শুনতে পেল এবং তখন সে তার লেজে
একটা ব্যথা অনুভব করল। সে ব্যথায় চিৎকার করতে থাকে, কিছু বুঝে উঠতে পালন না। হঠাৎ সে পেছন ফিরে তাকাল, সে দেখল লেজ আটকে গিয়েছিল একটি শিকারির ফাঁদে।

ফাঁদে আটকে থাকার কারণে সে অনেক কষ্টে ছিল। এবার সে ফাঁদ থেকে নিজেকে আলাদা করতে চাইল। সে জোর করে তার লেজ টানতে লাগল। সে অনেক চেষ্টা করেছিল এবং শেষ পর্যন্ত সে ফাঁদ থেকে নিজেকে মুক্ত করল। কিন্তু তার লেজ আর তার সাথে ছিল না। তার লেজ ফাঁদে আটকা পড়ে কেটে গেল।

এটা দেখে সে কাঁদতে থাকে। ভাবছিল সে এখন তার বাকি বন্ধুদের সাথে কিভাবে দেখা করবে? লেজ না থাকলে অন্যরা তাকে ঠাট্টা করবে। এতে সে বিব্রত বোধ করবে। এসব ভাবতে ভাবতেই কান্না শুরু করে দিল। কিছুক্ষণ পর সে ভাবতে থাকে কিভাবে সমস্যা এড়ানো যায়? তখন তার মাথায় একটা বুদ্ধি এল এবং সে সোজা তার সঙ্গীদের কাছে চলে গেল।

সে তার সব বন্ধুদের জড়ো করে তাদের বলল, “আমার ভাই ও বোনেরা আমার দিকে তাকাও, দেখ আমি আমার লেজ কেটে ফেলেছি। লেজ রেখে কোন লাভ নাই। আমরা যখন শিকারে যাই, মাঝপথে তা আমাদের বিরক্ত করে। কুকুর যখন আমাদের ধরার জন্য তাড়া করে, তখন তারা এই লেজ দিয়ে আমাদের ধরতে পারে। এই লেজ আমাদের কোন কাজেই আসে না বরং সমস্যার সৃষ্টি করে, তাই আমি তোমাদের সবাইকে বলতে চাই তোমরাও আমার মত লেজ কেটে বিপদ থেকে পরিত্রাণ পাও। এটা করলে তুমি অনেক উপকৃত হবে।”

শেয়াল বিভিন্ন ভাবে তাদের বোকা বানানোর চেষ্টা করল। কিন্তু তখন একটা শেয়াল বলল, “আমরা ভালো করেই জানি যে তুমি আমাদের সুবিধার জন্য এখানে ডাকনি। তুমি লেজ হারিয়ে এখন বিপদে পড়েছে। তুমি চাও আমাদেরও তোমার মতো একই দশা হোক। আমরা তোমার মত বোকা নই, এখান থেকে যাও, লেজ ছাড়া জীবন কাটাও।” এই বলে সমস্ত শেয়াল সেখান থেকে চলে গেল। আর শিয়ালটি লেজ ছাড়া জীবন কাটাতে লাগল।

উপদেশ: ইচ্ছা করলেই সবাইকে বোকা বানানো যায় না।

Share on Social Media